সাহিত্য

বাবার মতো কেউ বলেনা আয় খুকু আয়

"কাটেনা সময় যখন আর কিছুতে,বন্ধুর টেলিফোনে মন বসেনা,জানালার গ্রীলটাতে ঠেকাই মাথা,মনে হয় বাবার
মতো কেউ বলেনা,আয় খুকু আয়, আয় খুকু আয়"।হেমন্ত  মুখোপাধ্যায় ও শ্রাবন্তী মজুমদারের গাওয়া এ গানটি সন্তানদের এক অসীম নষ্টালজিয়ায় ডুবিয়ে দেয়।আজ ১৬ জুন,বিশ্ব বাবা দিবস।ভাষাভেদে ডাক ভিন্ন হলেও সকল সন্তানের কাছে এক পরম আশ্রয়ের নাম বাবা।সন্তানের অমল-শীতল ছায়া নির্ভরতা বাবা।
সন্তানের মঙ্গলের জন্য নিরন্তর খেটে যাওয়া মানুষটি হচ্ছেন বাবা।এনসাইক্লোপিডিয়া থেকে জানা যায় জুন মাসের তৃতীয়  রোববার বিশ্বের প্রায় চুয়াত্তরটি দেশে 'বাবা দিবস' পালিত হয়।বাবার প্রতি শ্রদ্ধা,ভালোবাসা
জানানোর জন্যই এ দিবস।যদিও বাবার প্রতি সন্তানদের  সেই চিরন্তন ভালোবাসার প্রকাশ প্রতিদিনই
ঘটে।তারপরও বিশ্বের মানুষ বছরের একটা দিনকে বাবার জন্য রেখে দিতে চায়।যেমনটা মায়ের জন্য করেছে।এর পরিপ্রেক্ষিতে ' বাবা দিবসের' প্রচলন।

'বাবা দিবসের প্রচলন বিংশ শতাব্দীর শুরু থেকেই। ১৯০৮ সালের ৫ জুলাই প্রথম 'বাবা দিবস' পালিত হয়।
যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম ভার্জিনিয়ার (West Virginia)ফেয়ারমন্ট(Fairmont) গীর্জায় প্রথম এ দিবসটি পালন করা হয়।সনোরা স্মার্ট ডড(Sonora smart dood) নামে ওয়াশিংটনে এক নারীর মাথায়ও 'বাবা দিবসের' আইডিয়াটি(Idea) আসে।যদিও তিনি ১৯০৯ সালে ভার্জিনিয়ায় (Virginia)'বাবা দিবসের কথা একেবারেই জানতেন না।ডড(Dood) এই আইডিয়াটা( Idea) টা পান গীর্জায় এক পুরোহিতের বক্তব্য থেকে।সেই পুরোহিত আবার মাকে নিয়ে অনেক
ভালো কথা বলেছিলেন।তাঁর মনে হয়েছিল মায়ের পাশাপাশি বাবাদের নিয়ে কিছু করা দরকার।ডড (Dood) আবার তাঁকে,বাবাকে খুব ভালোবাসতেন। তিনি সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগে পরের বছর ১৯১০ সালের ১৯ জুন 'বাবা দিবস' পালন শুরু করেন।

১৯১৩ সালে আমেরিকার সংসদে 'বাবা দিবসে' ছুটির
ঘোষণার জন্য একটি বিল উত্থাপন করা হয়।১৯২৪ সালে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট Calvin coolidge বিলটিতে পূর্ণ সমর্থন দেন।পরে ১৯৬৬ সালে প্রেসিডেন্ট
Lyndon B.johnson 'বাবা দিবসে' ছুটি ঘোষণা করেন।
সেইথেকে বিশ্বের অনেক দেশে প্রতিবছর জুন মাসের তৃতীয় রোববার 'বাবা দিবস' পালন করে আসছে।
আমাদের দেশে 'বাবা দিবসের' ধারণা খুব পুরনো না হলেও এখন অন্যান্য দিবসের সাথে পালিত হয়ে আসছে।
পরিশেষে বলতে চাই আমার বাবাকে হারিয়েছি অনেক
বছর।কিন্তু বিশ্বের সকল বাবা ভালো থাকুক।এই কামনা।

 


সিনিয়র সাব এডিটর
বাংলাদেশ কোয়ার্টারলী

মন্তব্য