আন্তর্জাতিক

ইরানের বিষয়ে আমেরিকার সঙ্গে ঘোর মতপার্থক্য রয়েছে : রাশিয়া

 

রাশিয়ার উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ বলেছেন, ইরান ও ভেনিজুয়েলার ব্যাপারে আমেরিকার সঙ্গে তার দেশের ঘোরতর মতপার্থক্য রয়েছে।

তিনি বুধবার ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিংকি’তে মার্কিন উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডেভিড হেইলের সঙ্গে এক বৈঠকে এ মন্তব্য করেন।

রিয়াবকভ বলেন, সিরিয়া যুদ্ধ, কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু অস্ত্রমুক্তকরণ, আফগান সংকট এবং সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধ নিয়ে আমেরিকা ও রাশিয়ার মধ্যে মতের অমিল রয়েছে। কিন্তু ইরান ও ভেনিজুয়েলার ব্যাপারে দু’দেশের মধ্যকার মতবিরোধ ঘোরতর পর্যায়ে রয়েছে।

পশ্চিমা বার্তা সংস্থাগুলো খবর দিয়েছে, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ইস্যুতে নিজেদের মধ্যে মতপার্থক্য কমিয়ে আনার জন্য হেলসিংকিতে বৈঠকে বসেছিলেন সের্গেই রিয়াবকভ ও ডেভিড হেইল। কিন্তু সে বৈঠক উল্লেখযোগ্য কোনো ফলাফল ছাড়াই শেষ হয়েছে।

আমেরিকা গত বছর ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে গায়ের জোরে বেরিয়ে গিয়ে তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। রাশিয়াসহ আন্তর্জাতিক সমাজ ওয়াশিংটনের এ পদক্ষেপের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।  রাশিয়া বহুবার ইরানের ওপর আরোপিত মার্কিন নিষেধাজ্ঞাকে অবৈধ আখ্যায়িত করে ইরানের ওপর চাপ সৃষ্টি করার জন্য মার্কিন সরকারের সমালোচনা করেছে।

অন্যদিকে মার্কিন সরকার ভেনিজুয়েলার বিরোধীদলীয় নেতা হুয়ান গুয়াইদোকে দেশটির অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার পর থেকে বিষয়টি নিয়ে ওয়াশিংটনের সঙ্গে মস্কোর মতবিরোধ তুঙ্গে ওঠে। আমেরিকাসহ পশ্চিমা দেশগুলো ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চায়। অন্যদিকে রাশিয়া মাদুরো সরকারের প্রতি সর্বাত্মক সমর্থন ঘোষণা করেছে।

গুয়াইদো চলতি বছরের ২৩ জানুয়ারি আমেরিকা ও ইউরোপীয় দেশগুলোর সবুজ সংকেত পেয়ে এক জনসভায় নিজেকে ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন। ভেনিজুয়েলার সরকার ও জনগণ এ পদক্ষেপকে নির্বাচিত মাদুরো সরকারের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা হিসেবে অভিহিত করেছে।

মন্তব্য