আন্তর্জাতিক

সকালের সময় 'কোভিড-১৯' আপডেট
# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ 297,083 182,875 3,983
বিশ্ব 23,728,063 16,193,743 814,657

গরুকে সঙ্গীত শোনালেই পাবেন অঢেল দুধ!

 

কোন কালে শুনেছেন কি গরু গান শোনে? শুধু শুনেই না এর ফলে নাকি দুধও বেশি দেয়। তবে এবার শুনুন, একাধিক খামারে টানা ১২ ঘণ্টা ধীর ছন্দের শ্রুতিমধুর শাস্ত্রীয় সঙ্গীত চালিয়ে পশুচিকিৎসক ও বিশেষজ্ঞরা দেখেছেন, খামারগুলোতে দুধের উৎপাদন অন্তত ৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এমনটাই প্রকাশ পেয়েছে ব্রিটেনের একদল গবেষকের সমীক্ষায়।

গত মঙ্গলবার পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের আসাম প্রদেশের এক বিজেপি বিধায়ক দাবি করেন, গরুর কাছে দাঁড়িয়ে কৃষ্ণের মতো বাঁশি বাজালে দুধ বেশি পাওয়া যাবে। বিজেপি বিধায়কের এহেন মন্তব্যে শোরগোল পড়ে গেছে ওই দেশটিতে।

বিজেপি বিধায়কের এই ধরনের মন্তব্যের কি আদৌ কোন বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা রয়েছে, নাকি সবটাই আবেগতাড়িত! তবে এবার দেখা যাক ব্যাপারটি আসলে কী।

মার্কিন পশুচিকিৎসক ও বিশেষজ্ঞ ডঃ অ্যানা ওব্রায়ানের মতে, সঙ্গীত ও সুর গরুর দুধের উৎপাদনকে প্রভাবিত করতে পারে। শুধু ডঃ ওব্রায়ানই নয়, জর্জিয়ার স্কুল অব ভেটেরিনারি মেডিসিনের সহকারী কর্মকর্তা ডঃ নিয়ান অলওয়ার্থও সম্প্রতি ‘মর্ডান ফার্মার’ নামের একটি পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, এ নিয়ে কেন বার বার গবেষণার প্রয়োজন হচ্ছে জানিনা! হয়তো গবেষকরা উৎপাদনের প্যারামিটারগুলো ভাল করে লক্ষ্য করছেন না। আমি আবার বলবো ধীর এবং শ্রুতিমধুর ছন্দ দুধ উৎপাদন বৃদ্ধিতে অনেক বেশি সহায়ক।

ব্রিটেনের লিসেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই মনোবিজ্ঞানীর করা ২০০১ সালের এক সমীক্ষায় এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট প্রমাণ রয়েছে। ওই সমীক্ষার রিপোর্টে মনোবিজ্ঞানী ডঃ অ্যাড্রিয়ান নর্থ আর তার সহকর্মী লিয়াম ম্যাকেনজি দাবি করেন, ধীর ছন্দের শ্রুতিমধুর শাস্ত্রীয় সঙ্গীত গরুর দুধের উৎপাদন বৃদ্ধিতে বিশেষভাবে কার্যকরী।

লিংকনশায়ারের একাধিক খামারে ৯ সপ্তাহ ধরে এই সমীক্ষাটি চালান তারা। এসব খামারে প্রতিদিন টানা ১২ ঘণ্টা ধীর ছন্দের শ্রুতিমধুর শাস্ত্রীয় সঙ্গীত চালিয়ে তারা দেখেছেন, খামারগুলোতে দুধের উৎপাদন অন্তত ৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। সমীক্ষায় দেখা যায়, মধুর সঙ্গীতের প্রভাবে খামারের প্রতিটি গরু প্রায় ৭৩০ মিলিলিটার দুধ বেশি দিয়েছে।

ব্রিটিশ মনোবিজ্ঞানী ম্যাকেনজি বলেন, যেভাবে শ্রুতিমধুর সঙ্গীত মানুষের মানসিক চাপ, ক্লান্তি কমিয়ে স্বস্তি দেয়, কর্মদক্ষতা বাড়ায়, ঠিক সেভাবেই গবাদি পশুর ক্ষেত্রেও সঙ্গীত একইভাবে কাজ করে।

সূত্র : জি-নিউজ

মন্তব্য