সারা বাংলা

শিক্ষা দিবসে শ্রদ্ধা নিবেদন

৫৭তম মহান শিক্ষা দিবস উপলক্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়েছে। রাবি শাখা সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের উদ্যোগে মঙ্গলবার সকালে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা বলেন, ১৯৬২ সালের এই দিনে পাকিস্তানি শাসন, শোষণ ও শিক্ষা সংকোচনের বিরুদ্ধে লড়াই করতে গিয়ে শহীদ হন ওয়াজিউল্লাহ, গোলাম মোস্তফা, বাহুলসহ নাম না জানা অনেকেই। তৎকালীন স্বৈরশাসক আইয়ুব খান একটি শিক্ষা কমিশন গঠন করে। শরীফ কমিশন খ্যাত এসএম শরীফের নেতৃত্বে গঠিত কমিশনে বলা হয়েছিল সস্তায় শিক্ষা পাওয়া যায় বলে যে ভুল ধারণা রয়েছে ত্যাগ করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্বশাসনের পরিবর্তে পূর্ণ সরকারি নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা, বিশ্ববিদ্যালয়-কলেজে রাজনীতি নিষিদ্ধ করা, ছাত্র শিক্ষকের কর্যকলাপের ওপর তীক্ষ্ম নজর রাখার প্রস্তাব করা হয় এই কমিশনে।

স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও শিক্ষা ক্ষেত্রে একই পরিস্থিতি বিদ্যমান। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্বশাসন আজ শিকাই তোলার আয়োজন চলছে। সরকারি দলের ছাত্র সংগঠনের দখলদারিত্ব প্রত্যেকটি ক্যাম্পাসে বিদ্যমান। গবেষণা খাতে বরাদ্দ প্রায় শূন্যের কোঠায়। শিক্ষা বাণিজ্যকে প্রতিটি ধাপে উৎসাহিত করা হচ্ছে। শিক্ষার ওপর সর্বগ্রাসী আক্রমণ রুখতে হলে শিক্ষার্থীদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান বক্তারা।

এসময় ছাত্রফ্রন্ট রাবি শাখার আহ্বায়ক রিদম শাহরিয়ার, সাধারণ সম্পাদক নাহিদ আহমেদ, কেন্দ্রীয় সদস্য সোহরাব হোসেনসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য