শিক্ষা

জাবিতে ‘যৌন নিপীড়নের’ দায়ে অভিযুক্ত শিক্ষকের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল

 

জাহাঙ্গীনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন নিপীড়নের দায়ে অভিযুক্ত সরকার ও রাজনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. সানওয়ার সিরাজের বিচারের দাবিতে ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’র ব্যানারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে শিক্ষক - শিক্ষার্থীরা। এ সময় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা অভিযুক্ত ঐ শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।  

শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুর দুইটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে বিশ^বিদ্যালয়ের প্রায় শতাধিক শিক্ষক – শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। পরে মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ মিছিল করে আন্দোলনকারীরা শিক্ষক - শিক্ষার্থীরা।
পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দিন রুনু বলেন,‘ এক শিক্ষক হিসেবে লজ্জাবোধ করছি যখন শিক্ষকের দ্বারা ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের খবর প্রকাশ পায়। ছাত্র - শিক্ষকদের মধ্যে একটা নিরাপদ আস্থার জায়গা থাকবে যা হাড়িয়ে ফেললে শিক্ষার পরিবেশ বিঘিœত হয়। এই ঘটনাকে বিচিন্ন মনে না করে সামগ্রিকভাবে চিন্তা করতে হবে এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।’

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি সুস্মিতা মরিয়ম বলেন,‘সোনিয়াসহ যে শিক্ষার্থীদের সাথে যৌন নিপীড়ন মূলক আচরণ  করতে পারে সে মানুস না, মানুষ নামের লম্পট। একজন লম্পট কখনো শিক্ষক হতে পারে না। শিক্ষক হওয়ার জন্য আগে আদর্শ মানুষ হতে হবে। আমরা এই যৌন নিপীড়ক লম্পট শিক্ষকের শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ জাবি শাখার আহয়ক শাকিল-উজ- জামান বলেন,‘এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে এর আগেও  বিবাহ বহির্ভূত অনেক অনৈতিক সম্পর্কের খবর আমরা গণমাধ্যমে জানতে পেরেছি। বেগম রোকেয়া বিশ^বিদ্যালয়ে লেকচারার পদে থাকা কালীন সময়ে তিনি এক শিক্ষিকার সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তুলেন। বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জাতির অভিভাবক । কিন্তু শিক্ষকের বিরুদ্ধে যদি যৌন নিপীড়নের মত স্পর্সকাতর অভিযোগ উঠে তা জাতির জন্য লজ্জাজনক।’

এছাড়াও মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন  বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ জাবি শাখার সমন্বয়ক আবু সাঈদ, যুগ্ম-আহŸায়ক জয়নাল আবেদীন শিশির, আরিফুল ইসলাম আদীব, জাবি ছাত্র ফ্রন্টের সদস্য রাকিবুল রনি।

মন্তব্য