বিনোদন

আগে অনেক মিথ্যা বলেছি: অপু বিশ্বাস

 


শাকিব খান-অপু বিশ্বাস। চলচ্চিত্রের পর্দায় তাদের জুটি সফলতা পেলেও বাস্তব জীবনে জুটি হিসেবে ব্যর্থ। ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল গোপনে বিয়ে করেন শাকিব-অপু। দীর্ঘ আট বছর গোপনে সংসার করার পর অপুর কোলজুড়ে আসে পুত্র আব্রাম খান জয়। জয়কে নিয়ে গণমাধ্যমে হাজির হন অপু বিশ্বাস। এর পর শাকিব খান-অপু বিশ্বাসের দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসে। শুধু তাই নয়, অপুকে ডিভোর্স লেটার পাঠান শাকিব। তারপর দীর্ঘ আলোচনা-সমালোচনার মধ্য দিয়ে তাদের বিবাহবিচ্ছেদ ঘটে।

ঢালিউড কুইন অপু বিশ্বাস সম্প্রতি ধর্মীয় ইস্যু সহ সমসাময়িক অনেক মন্তব্যে নতুন করে আলোচনায় এসেছেন। বিভিন্ন গণমাধ্যমে দেওয়া তার মন্তব্য নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েছেন এই নায়িকা। সম্প্রতি গণমাধ্যমের বিশেষ একটি অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে অপু জানালেন শাকিবকে বিয়ে করার পরের মুহূর্তগুলোতে তিনি ক্যামেরার সামনে বেশ কিছু মিথ্যা বলেছেন।

অপু বলেন, ‘শাকিব খানের ক্যারিয়ারের কথা চিন্তা করে (যেহেতু সে আমার স্বামী ছিলো) আমি অনেক মিথ্যা বলেছি। কোনো প্রোগ্রামে আমরা একসাথে গেলে আমি শাকিবকে বলতাম কখন বিয়ে করছো? বা শাকিব আমার বিয়ের বরণ ঢালা সাজাবে এরকম কথা বলতো, বাস্তবে আমরা কিন্তু তখনই স্বামী-স্ত্রী। মিথ্যা বলে গিয়ে রাতে আমিই তাকে রান্না করে খাওয়াচ্ছি।’

অপু কোন ধর্মের রীতি অনুসরণ করছেন জানতে চাইলে বলেন, ‘আমি যখন শাকিবকে বিয়ে করি তখন নিজেকে মুসলিম হিসেবে দাবি করেছি। এছাড়া ক্যামেরার সামনেও এটাই বলেছি। কারণ আমার ছেলে আছে, তারও তো একটা পরিচয় আছে। তবে সত্য কথা বলতে, আমি সবসময় হিন্দু ধর্মেরই ছিলাম। একটা ধর্ম থেকে অন্য একটা ধর্মে যেতে অফিশিয়াল যে ফরমালিটিজ মেইনটেইন করতে হয় আমার বেলায় সেটা হয়নি।’

আমার নিজের প্রয়োজনে মিথ্যা বলেছি। এখন আমার ছেলে বড় হচ্ছে। তার বাবা যেহেতু মুসলিম সেও মুসলিম। তবে যখন বড় তখন দেখা যাবে আসলে সে কোন পথে যেতে চাচ্ছে- যোগ করেন অপু।

মজার ছলে প্রশ্ন ছিলো অপু যেহেতু তার মায়ের সঙ্গে থাকে সেহেতু তার মা তাকে রেগে কী গালি দেয়? হেসে অপু জবাব দেন, ‘মা আমাকে শয়তান বলে গালি দেয়। কারণ জয় যখন দুষ্টুমি করে তখন আমার বিরক্ত হয়। মা তখন বলে কী শয়তান মা ছেলেটাকে দেখে না, হাহাহাহাহা।’

প্রেম নিয়ে নতুন জেনারেশনের নায়িকাদের কী উপদেশ দিতে চান জানতে চাইলে অপু বলেন, ‘এটা যার যার ব্যক্তিগত ব্যাপার।’

বছর খানেক আগে তিনি গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন যে, শাকিব খানকে বিয়ে করার পর থেকে তিনি ইসলাম ধর্ম পালন করেছেন। ধর্মীয় নিয়ম মেনে তিনি নামাজ পড়েছেন, রেখেছেন রোজাও। কিন্তু সম্প্রতি গণমাধ্যমকে দেওয়া তথ্যে তিনি নিজেকে হিন্দু দাবি করেছেন। যেটা আগের দেওয়া মন্তব্যের সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ।

তাহলে এখন আবার কেন নিজেকে হিন্দু দাবি করছেন অপু বিশ্বাস? জবাবে সম্প্রতি একটি রেডিও স্টেশনের লাইভে এসে অপু বিশ্বাস বলেন, আমি নামাজ পড়েছি, রোজা রেখেছি; এগুলো সত্যি। কিন্তু আমি তো ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করিনি। আমি জন্ম থেকে এখনও পর্যন্ত হিন্দু। আমার নাম অপু বিশ্বাস। আমার পাসপোর্ট, পরিচয়পত্র সবখানেই এই নাম ও ধর্ম হিসেবে হিন্দু দেয়া আছে।

এই অভিনেত্রী বলেন, আমি নামাজ-রোজা করলেও কোরবানির সঙ্গে যুক্ত হইনি, এমনকি কখনো গরুর মাংসও খাইনি। কারণ আমি মনে প্রাণে সবসময় হিন্দু ছিলাম।অপু বিশ্বাস বলেন, আমি যেমন ক্যারিয়ারের জন্য শাকিবের সঙ্গে বিয়ের কথা প্রকাশ করেনি, যদিও আমি বিশাল একটি কথা বলেছিলাম ধর্ম নিয়ে। এই ধর্মের সাথে লুকানো ছিল আমার সন্তান। কিন্তু আজকে মনে হচ্ছে, আমি যদি কালকে মারা যাই আপনারা আমাকে দাফন নাকি দাহ করবেন! সেই ভয় বা সংশয় থেকে আজকে এই সত্যতা বলে দিলাম, আমাকে দাহ করা হবে, দাফন নয়! অপু বিশ্বাস হিন্দু হলে নিজের একমাত্র পুত্র আব্রাম খান জয়কে বড় করবেন ইসলাম ধর্মের রীতিতে। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ওর নাম আব্রাম খান জয়। আর ওর সমস্ত কাগজপত্রে ধর্ম ইসলাম দেয়া আছে।

উল্লেখ্য, অপু বিশ্বাস সর্বশেষ জুটি বেধে অভিনয় করেছেন চিত্রনায়ক বাপ্পীর সঙ্গে। দেবাশীষ বিশ্বাস পরিচালিত ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ ২’ ছবিতে তারা দুজন অভিনয় করেন। শিগগির ছবিটি মুক্তি দেয়া হবে।

মন্তব্য