বিশেষ খবর

সকালের সময় 'কোভিড-১৯' আপডেট
# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ 707,362 597,214 10,081
বিশ্ব 139,771,067 118,808,535 3,001,702
CTG News

ইউএস-বাংলা মালিকের তান্ডব

ভুমিদুস্য ইউএস বাংলা মালিকের মিথ্যা মামলায় রূপগঞ্জ ও আড়াইহাজার থানার চার গ্রামের কৃষক গ্রাম ছাড়া। এসব কৃষকদের বসত ভিটাসহ কৃষিজমিতে জোরপূর্বক মাটি ভরাট করে শতশত বিঘা জমি দখল করা হয়েছে। তার তান্ডবের প্রতিবাদে যে কোন সময় নারায়ণগঞ্জের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন অভিজ্ঞমহল।
ইউএস বাংলার এমডি আব্দুল্লাহ আল মামুনের জমি দখলের বিরুদ্ধে স্থানীয় কৃষকসহ চার গ্রামের বাসিন্দারা গত জানুয়ারি মাসে এক  প্রতিবাদ ও মানববন্ধনে ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়। এরপর লোক দিয়ে রুপগঞ্জ থানায় মিথ্যা মামলা দায়ের করানো হয়েছে। রূপগঞ্জ থানার মামলা নম্বর ৩২। উক্ত মামলায় ১৫ জনের নাম উল্লেখসহ ৩০০ থেকে ৩০৫০ অজ্ঞাতনামা হিসেবে চার গ্রামের কৃষক ও বাসিন্দাদের আসামী করা হয়েছে। রাজধানীর যাত্রাবাড়ি থানার ২৬৭/৯ নম্বর কোনাপাড়া সামাদ শেখের ভাড়াটি মো. মাহবুবুর রহমান ওরফে শাওন মামলার বাদি হয়েছেন। মামলায় যাদের আসামি করা হয়েছে তারা হলেন, মো. জয়নাল (৪২), মো.শরীফ সরকার (৪৫), মো. জাহাঙ্গীর (৪৫) মো.সুমন (৩৬), মো. আলেক চান (৪৩), সারোয়ার (২৮), মো.মেহেদী (২৮), মজিবর (৫৫), অলিউল্লাহ (৫৫), এলাহি (৩০), নাঈম (২৮), অহিদ উল্লাহ (৩২), আল আমিন (২৫), মো.হারুন (২৫) ও আ. লতিফ (২৬)। এসব অসহায় কৃষকসহ চার গ্রামের বাসিন্দা পুলিশের গ্রেফতারের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। 
সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার দলীয় প্রভাবশালীদের হাত করে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ ও আড়াইহাজারের কাঞ্চন, নোয়াপাড়া, দিঘলিয়া ও কেষাব মৌজার শতশত বিঘা কৃষকদের জমি ক্রয় না করেই জবরদখল করে বালু ভরাট করছে। এসব এলাকার ভুক্তভোগিদের সঙ্গে কথা বলে মিথ্যা মামলা দায়ের নেপথ্যের চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। 
বান্টি এলাকার বাসিন্দা ও মিথ্যা মামলার আসামি সকালের সময়কে জানান, ইউএস বাংলার মালিক এসে আমাদের বলেছেন, তোমরা মামলা নিয়ে চিন্তা করো না। ওটা আমি দেখব। তোমরা শুধু এলাকার কৃষকদের জমিগুলো আমাকে ক্রয় করে দাও। ওই ব্যক্তি আরো জানান, কৃষকদের পক্ষে যারাই প্রতিবাদ করবেন, তাদেরকেই তার লোকজন মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারের ভয় দেখানো হচ্ছে। 
আবার নয়াগাঁও এলাকার মৃত জব্বার মোল্লার ছেলে দরিদ্র কৃষক রতন মিয়া জানান, তার ভাই গোলাজার, মনির, আলী হোসেন ও মুক্তাসহ ৫ ভাইয়ের ৫২ শতাংশ জমিতে বাড়ি করে বসবাস করছেন। পুরো বাড়িসহ তাদের জায়গা-জমি বালু ভরাট করা হয়েছে। তাদের কাছে কোন প্রকার অনুমতি এমনকি ক্রয় বিক্রয়ের কথাও বলা হয়নি। কান্না জড়িত কন্ঠে তিনি বলেন, চারপাশের সকল জমিতেই মাটি ভরাট করা হয়েছে। এখন আমরা কোথায় যাবো। তিনি আরো বলেন, তাদের মত শতশত ব্যক্তির সম্পত্তি এভাবেই দখল করা হচ্ছে। 
ইউএস বাংলার এমডি শুধু ভুমিদুস্যই নয়, বেসরকারি উড়োজাহাজ প্রতিষ্ঠান ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস লিমিটেড এর মাধ্যমে সোনা চোরাচালানে জড়িয়ে পড়ারও চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। কোম্পানীর উড়োজাহাজ থেকে একের পর এক কোটি কোটি টাকার চোরাচালানের সোনা উদ্ধার করেছে ঢাকা কাস্টমস, শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর। আর এসব সোনা চোরাচালান আড়াল করতেই বিভিন্ন সময়ে প্রভাবশালীদের ব্যবহার করারও চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে।
সম্প্রতি হযরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ক্যাটারিং সার্ভিসের গাড়ি থেকে প্রায় সাত কেজি সোনা উদ্ধারের মামলায় আটজন আসামিকে চার দিন রিমান্ডে নেয় পুলিশ। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বিমানবন্দর থানার সাব-ইন্সপেক্টর কবির হোসেন আসামিদের আদালতে হাজির করে ১০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন। ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরী চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, সোনা উদ্ধারের ঘটনায় ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ক্যাটারিং সার্ভিসের আট কর্মীকে আটক করা হয়। তারা হলেন, ক্যাটারিং সহকারী মো. আলী রেজা, সাদ্দাম হোসেন, রাশেদুল ইসলাম, আব্দুর রাজ্জাক, আবু সালেহ, হানিফ দেওয়ান, জাহেদুর রহমান ও ক্যাটারিং হেলপার আশরাফুল আলম। ক্যাটারিং সার্ভিসের কাভার্ড ভ্যানের স্টোরেজে বিশেষভাবে স্বর্ণগুলো লুকানো ছিল। ঐ বাক্সে সাত কেজি ওজনের ৬০ পিস স্বর্ণের বার পাওয়া যায়। যার আনুমানিক মূল্য ৪ কোটি ৮৭ লাখ ২০ হাজার টাকা।
আবার ইউএস-বাংলা অ্যাসেটসের পূর্বাচল আমেরিকান সিটির বিরূদ্ধে রয়েছে শতশত বিঘা কৃষি জমি জবরদখল করে বালু ভরাটের অভিযোগ উঠেছে। নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ ও আড়াইহাজারের মধ্যস্থ কাঞ্চন, নোয়াপাড়া, দিঘলিয়া ও কেষাব মৌজায় এসব ভুমি দখল করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, মসজিদ ও সরকারি খাল ভরাট করেই খ্যান্ত হচ্ছেন না। স্থানীয় সন্ত্রাসী দ্বারা বাড়ি ঘরে হামলা, গাছ কর্তনসহ মিথ্যা মামলার অভিযোগ রয়েছে। 
আড়াইহাজার বান্টি গ্রামের ভুক্তভোগিরা জানান, ভূমি খেকুচক্র প্রথমে অল্প কিছু জমি ক্রয় করেন। এরপর ক্রয়কৃত জমির পাশাপাশি স্থানীয় কৃষকদের কৃষি জমি জোরপূর্বক বালু ভরাট করছে। এরপর প্রতিবাদে সম্প্রতি এক মানববন্ধন করা হলে সেখানে ইউএস বাংলার ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছে। শুধু তাই নয়, এসব গ্রামবাসির বিরুদ্ধে থানা পুলিশের সহযোগিতায় মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। শতশত বিঘা জমি জোরপূর্বক বালু ভরাটের কারণে গ্রামবাসি বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠছেন। আর এই বালু ভরাটকে কেন্দ্র করে যে কোন সময় ভূূূমিদখলদারদের সঙ্গে কৃষকদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। 
নোয়াগাঁও এলাকার বিল্লাল হোসেন বলেন, আমার মোট তিনটি দাগে ২৯.৩০ শতাংশ জমি, আমানউল্লাহর ১৭, জুলহাশের ২ বিঘা ১৩ শতাংশ, আব্দস সাত্তারের ১ বিঘা ১৮ শতাংশ, বেলায়েত হোসেনের ১৩ শতাংশ জোরপূর্বক বালু ভরাট করা হয়েছে। বান্টি এলাকার আরিফ বলেন, আমরা খুব আতঙ্কে আছি কৃষি জমি বালু ভরাট করতে করতে আমাদের বাড়ি পর্যন্ত এসে পরেছে। যে কোন সময় আমাদের বাড়িঘরও বালু দিয়ে ভরাট করে ফেলতে পারে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ভোলাব পূর্বেরগাঁও স্বর্নখারী বাজার হতে রানীপুরা সরকারি খাল ভরাটের কাজ চলছে। 
আবার মামলার এজাহার নামীয় আসামি শরীফ সরকারের বড় ভাই আরিফ সরকার জানান, আমার বোনের জামাই এর জমিসহ আমাদের এবং আত্মীয় স্বজনদের জমি ক্রয় না করেই মাটি ভরাট করেছে। এজন্যই এলাকার লোকজন প্রতিবাদ করতে একত্র হয়ে মানববন্ধন করে। সেখানে আমার ভাইসহ গ্রামবাসী অংশগ্রহণ করে। এসময় ইউএস বাংলার বেতনভুক্ত সন্ত্রাসীরা অতর্কিত হামলা চালায়। এরপর উল্টো আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন। তিনি আরো জানান, আমরা শুধু চেয়েছিলাম আমাদের জমি ভরাট করেছে। আমাদের জমির প্রকৃত মূল্য যাতে দেন, তার জন্যই আমরা প্রতিবাদ করছি। 
এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোহসিনুল কাদির এর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি সকালের সময়কে বলেন, ‘ওদের (কৃষক ও গ্রামবাসী) দের জিজ্ঞেস করবেন পুলিশ কয়বার গেছে গ্রেফতার করতে। যা হোক আমি ওই ঘটনার সময় এখানে ছিলাম না।’
পরে ইউএস বাংলার মালিক আব্দুল্লাহ আল মামুন এর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। 

 

মন্তব্য