বিশেষ খবর

সকালের সময় 'কোভিড-১৯' আপডেট
# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ 537,465 482,424 8,182
বিশ্ব 105,957,358 2,310,170 77,602,804

সাদেককে ইমিরেটাস উপাধি ব্যবহার না করার নির্দেশ দিয়েছে ইউজিসি

বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন গতকাল ১৭ ফেব্রুয়ারি একটি আদেশ জারি করে (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়) এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এর সাবেক ভিসি আবুল হাসান মো. সাদেককে ইমিরেটাস উপাধি ব্যবহার না করার নির্দেশ দিয়েছে। ইউজিসি পরিচালক মো. ওমর ফারুখ স্বক্ষরিত ৩৭.০১.০০০০.১৩১.৪১.০০৫.২০.৫৯ নং স্বারকে এই নিদের্শনা জারি করা হয়েছে। এশিয়ান ইউনিভার্সিটির রেজিস্টারকে ইউজিসির দেয়া চিঠিতে এশিয়ান ইউনিভার্সিটির সাবেক উপাচার্য ইমিরেটাস উপাধি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। ইউজিসির নবনিযুক্ত পরিচালক ওমর ফারুক বলছেন এশিয়ান ইউনিভার্সিটির সাবেক উপাচার্য ইমিরেটাস উপাধি ব্যবহার করে গর্হিত অপরাধ করছে। তিনি বলছেন শিক্ষকরা এমন উপাধি যেন যত্রতত্র ব্যবহার করতে না পারে তার জন্য ইউজিসি কঠোর আইন করবে। এশিয়ান ইউনিভার্সিটির বর্তমান অবৈধ ভিসি সাদেক এমন উপাধি কেন ব্যাবহার করছে তার জন্য ইউজিসি কি পদক্ষেপ নেবে এমন প্রশ্নের জবাবে ওমর ফারুক সকালের সময়কে মুঠোফোনে বলছেন এশিয়ান ইউনিভার্সিটির সাবেক ভিসি (সাদেক) আমাদের চিঠির জবাব দেয়নি। সেই কারনেই ওনার ব্যাপারে আমরা একটা কঠোর পদক্ষেপ নেব। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান এই উপাধি ভুয়া উল্লেখ করে বলছেন এশিয়ানের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী যেন ভর্তি না হয় তার জন্য কমিশন থেকে আমরা মাঝে মাঝে প্রজ্ঞাপন দেই। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে কোয়ালিটি শিক্ষার ক্ষেত্রে সমাজের সকল ব্যক্তিকে এগিয়ে আসার আহবান করছেন কমিশনের চেয়ারম্যান। দৈনিক সকালের সময়ের অনুসন্ধানে জানা গেছে এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ভিসি সাদেকের "ইমিরেটাস" উপাধি ভুয়া। তিনি ২০১২ সাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়টির ভিসি নেই। মহামান্য রাষ্ট্রপতির নিয়োগ ছাড়া সাদেক এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ভিসি পদে অবৈধভাবে থাকাকালে বিভিন্ন মিটিং সেমিনারে তার নাম ব্যবহার করার ক্ষেত্রে তার নামের শুরুতে "ইমিরেটাস" উপাধি ব্যবহার করতে দেখে দৈনিক সকালের সময় তার কাছে জানতে চাইলে সেই উপাধি কে কবে দিয়েছে তার কোন সঠিক উত্তর দিতে পারেনি। এর পরে পহেলা ডিসেম্বর ২০২০ সালে দৈনিক সকলের সময় চিঠি দিয়ে সরদার আবুল হাসান মুহাম্মদ সাদেক ড. ও অধ্যাপক উপাধির পাশাপাশি "ইমিরেটাস" উপাধি কেন ব্যবহার করে তা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যানের নিকট জানতে চাওয়া হয়। সকালের সময়ের চিঠির প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন এশিয়ান ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রারকে চিঠি দিয়ে ৩ জানুয়ারি থেকে ৫ কর্মদিবস সময় দিয়েছে। নির্ধারিত সময়ের পরে দুসপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও সাবেক এই ভিসি কোন ব্যখা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনে দেয়নি। অবৈধভাবে ভিসি পদে থাকা, অযোগ্য লোকদের অবৈধভাবে নিয়োগ দিয়ে এশিয়ান ইউনিভার্সিটি থেকে সাদেক হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার কিংবা জঙ্গি ও জামাতের নেতাদের কেন এশিয়ান ইউনিভার্সিটিতে আশ্রয় প্রশ্রয় দেয় এই সাদেক এমন প্রশ্নের জবাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনিস্টিউটের অধ্যাপক অহিদুজ্জানান দৈনিক সকালের সময়কে বলেন সাদেক জঙ্গি ও জামাতের বন্ধু এমন খবর আমরা শুনতে পেয়েছি। এই লোকটিকে এশিয়ান ইউনিভার্সিটি থেকে সরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে সরকারকে আন্তরিক হতে হবে। ড. অহিদুজ্জামান বলেন আমি জানি ওখানে যারা পড়ায় তাদের মধ্যে কিছু লোক জঙ্গি জামাতের সাথে জড়িত। এশিয়ান ইউনিভার্সিটির সাবেক এই অবৈধ ভিসি ও ভুয়া ইমিরেটাস সাদেককে গ্রেফতার করে জেল দেয়া উচিত কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন এটা একটি আইনি প্রক্রিয়ার বিষয়। অন্যদিকে ৪ জানুয়ারী ২০২১ তারিখ রজতজয়ন্তী উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির বাণী পেয়েছে। রজতজয়ন্তী উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়টি সেই বানী ওয়েভিনারে পড়ে শুনিয়েছে যা অন্য কোথাও প্রকাশ করেনি। যদিও অভিযোগ আছে বিশ্ববিদ্যালয়টি এর পূর্বে রাষ্ট্রপতির বানি জ্বালিয়াতির। ইতিমধ্যেই জঙ্গি ও জামাত শিবিরের অভয়ারণ্যে পরিনত হয়েছে সে ব্যাপারে সরকারের গোয়েন্দা বিভাগ তদন্ত করছে। খোজ নিয়ে জানা গেছে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের চেয়ারম্যান আনিছ সরদার প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির বাণী সংগ্রহ করছে। এই বিশ্ববিদ্যালয়টির আওয়ামী পন্থি শিক্ষকরা ক্যাম্পাসে আনিচ সরদারকে জঙ্গির সরদার হিসেবে চিহ্নিত করছে। বিশ্ববিদ্যালয়টির একাদিক শিক্ষক বলছেন বাংলাদেশে বিএনপি জামাত ক্ষমতায় থাকাকালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তেন এই সরদার আনিছুর রহমান। তার গুরু জঙ্গিদের সরদার আব্দুর রহমান ওরফে বাংলা ভাই। তারা বলছেন বাংলা ভাইয়ের ফাঁসির পর খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা সাংবাদিক মাহামুদুর রহমানের সাথে থাকতেন আনিচ। মাহামুদুর রহমান গ্রেফতার  হওয়ার পর জঙ্গি ও জামাতের আর্থিক ডোনার এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা সরদার আবুল হাসান মুহাম্মদ সাদেক আনিচকে আশ্রয় দিয়েছে। এখন শিক্ষকের সাথে মিশে হয়ে গেছে সহকারী অধ্যাপক! তবে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের নীতি অনুসরন করলে আনিচের শিক্ষক হওয়ার যোগ্যতাই নেই। সে কি করে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বিভাগের চেয়ারম্যান হলো? এমন প্রশ্নের জবাব দিয়ে ভিসি সাদেকের ভাই সাবেক ডেপুটি রেজিস্ট্রার মনজুর এলাহী সকালের সময়কে বলছেন উত্তর বঙ্গের একজন প্রতিমন্ত্রী ভিসি স্যারকে ফোন করে আনিচকে নিয়োগ দিতে সুপারিশ করছেন। তাই আনিচকে চাকুরী দেয়া হয়েছে। মঞ্জুর এলাহি বলছেন আনিচের ব্যাপারে জামাত বা শিবিরের জড়িত থাকার অভিযোগ থাকলে আমরা আনিচকে বাদ দিব।

মন্তব্য