সারা বাংলা

সকালের সময় 'কোভিড-১৯' আপডেট
# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ 707,362 597,214 10,081
বিশ্ব 139,771,067 118,808,535 3,001,702
Manarat University

শ্রীনগরে লগডাউনের সুযোগে সরকারি খাল ও পানিপ্রবাহের পথ ভরাটের মহোৎসব চলছে

শ্রীনগরে লগডাউনের সুযোগে সরকারি মাটি দিয়েই সরকারি খাল ও পানিপ্রবাহের পথ ভরাট করে দখলের মহোৎসব চলছে। গত কয়েক দিনে শ্রীনগর উপজেলার বিভিন্ন স্থান ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। প্রতিটি দখলেই স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে।
স্থানীয়রা জানান, শ্রীনগর বাজারের পুলিশ প্লাজার পশ্চিম পাশের ব্রিজের জায়গাসহ টিন দিয়ে বেড়া দিয়ে সরকারি জায়গা ভরাট করে দখলের অভিযোগ উঠেছে। এই কাজে ভেকু ব্যবহার হচ্ছে শ্রীনগর ইউনিয়ন পরিষদের নামে। সেখানে ব্রিজের নিচের ও আশপাশের খালের মাটি ভেকু দিয়ে কেটে ওই স্থানটি ভরাট করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে শ্রীনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোকলেছুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, খালের পানিপ্রবাহ চলমান রাখার জন্য ভেকু দিয়ে মাটি সরানো হচ্ছে। কিন্তু ওই মাটি দিয়ে ব্রিজের এক পাশের প্রায় অর্ধেকসহ ওই এলাকার বদন কৃষ্ণ দাসের ছেলে মিল্টন গং সরকারি জায়গা ভরাট করে সেখানে মার্কেট নির্মাণ করছে এমন অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, দখলের বিষয়টি তার জানা নেই। চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলার দুদিন পর দেখা যায়, পানিপ্রবাহের জন্য পুরো মাটি না সরিয়ে শুধুমাত্র দখলের জায়গা ভরাট করে ভেকুটি চলে গেছে।

এ ব্যাপারে মিল্টন দাস সাংবাদিকদের বলেন, তারা কোনো সরকারি জায়গা দখল করছেন না। তাহলে ব্রিজের অর্ধেক কেন টিন দিয়ে বেড়া দিয়েছেন- এমন প্রশ্নে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি। 
একই ভাবে উপজেলার ধাইসার-বাড়লিবাগ খালের ঘোষপাড়ার সামনের অংশ মুকুল ঘোষ গং ভরাট করে দখল করে নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এক সময় খালটি শ্রীনগর থেকে আড়িয়ল বিলে প্রবেশের মাধ্যম হিসাবে ব্যবহৃত হত। খালটি ভরাট হয়ে গেল ওই এলাকার মানুষ চরম বিপাকে পড়বে বলে স্থানীয়রা জানান।  তবে ভরাটকারীরা দাবি করছেন, খালটি তাদের নিজস্ব সম্পত্তি। 

অপরদিকে, ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের ছনবাড়ি ব্রিজের পূর্ব পাশের প্রায় ১০০ গজ উত্তরে সরকারি জায়গাসহ ভরাট করা হয়েছে। এই ভরাটে ব্যবহৃত হয়েছে ব্রিজের নিচে জমে থাকা সরকারি মাটি। প্রায় আড়াইশ ফুট দীর্ঘ ভরাটে ষোলঘর, পূর্ব দেউলভোগ, কল্লিগাঁও, হরপাড়াসহ বেশ কয়েকটি মৌজার জমির পানিপ্রবাহ বন্ধ হয়ে গেছে। ভরাটের কারণে অকেজো হয়ে পড়েছে একটি কালভার্ট। 

এর আগে বেজগাঁও বাসস্ট্যান্ড থেকে ৫০ গজ দক্ষিণে বেজগাঁও-কুকুটিয়া সড়কের ব্রিজের মুখ বন্ধ করে ওই এলাকার পানিপ্রবাহ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কয়েক দিনের ব্যবধানে সেখানে উঠে যাচ্ছে মার্কেট। 

শ্রীনগর উপজেলার খাল দখল ও পানিপ্রবাহের পথ বন্ধ করার যে প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে তা প্রতিকারের জন্য এখনই কার্যকরী ব্যবস্থা না নেয়া হলে এখানকার পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে পড়বে বলে স্থানীয়দের ধারণা।
শ্রীনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কেয়া দেবনাথ সাংবাদিকদের বলেন, খবর পেয়ে আমি শ্রীনগর বাজারের পশ্চিম পাশের দখল বন্ধ করে দিয়েছিলাম। পরে আবার দখলের বিষয়টি আমার জানা নেই। বাকি দখলগুলোর বিষয়ে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। 

এ ব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণব কুমার ঘোষের বক্তব্য নেয়ার জন্য ফোন দেয়া হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

মন্তব্য