সারা বাংলা

সকালের সময় 'কোভিড-১৯' আপডেট
# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ 707,362 597,214 10,081
বিশ্ব 139,771,067 118,808,535 3,001,702
Manarat University

ছাত্রলীগ নেতার কব্জি কর্তন : প্রধান আসামিসহ গ্রেফতার ২

কুড়িগ্রাম জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা আতাউর রহমান মিন্টুর হাতের কব্জি কেটে নেয়ার ঘটনায় দায়ের মামলার প্রধান আসামি ‘হাতকাটা’ বাঁধন ও তার অন্যতম সহযোগী রশিদ মিয়াকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঢাকার বাইপাইল এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে গত বুধবার (১৪ এপ্রিল) কুড়িগ্রামে নেয়া হয় বলে জেলা পুলিশের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে। 
 
সূত্র জানায়, রাজারহাট থানা পুলিশের একটি দল ঢাকার বাইপাইল এলাকা থেকে মিন্টুর ওপর মামলার প্রধান আসামি মেহেদী হাসান বাঁধন ওরফে ‘হাতকাটা’ বাঁধন এবং তার অন্যতম সহযোগী রশিদ মিয়াকে গ্রেফতার করে।
 
এ বিষয়ে জানতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) পবিত্র কুমারকে ফোন দিলে তিনি এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে অস্বীকৃতি জানান।
 
মেহেদী হাসান বাঁধন জেলার সদর উপজেলার কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নের শিবরাম এলাকার মুকুল মিয়ার ছেলে। তার মা মর্জিনা বেগম ওই ইউনিয়নের সংরক্ষিত (১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ড) নারী ইউপি সদস্য। আর রশিদ মিয়া একই ইউনিয়নের তালুক তালোয়া গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে। গত ১৬ মার্চ ছাত্রলীগ নেতা মিন্টুর ওপর হামলার পর থেকে এরা পলাতক ছিলেন। এলাকায় এরা ‘হাতকাটা’ বাহিনী হিসেবে পরিচিত।
এর আগে এই মামলায় আল-আমিন আহমেদ শুভ নামে আরেক আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সে কুড়িগ্রাম পৌরসভা এলাকার বকসীপাড়ার আব্দুল আজিজ দুলালের ছেলে। শুভ এজাহারভুক্ত আসামি না হলেও গ্রেফতারের পর সে নিজের সম্পৃক্ততার কথা জানিয়ে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। বর্তমানে সে জেলহাজতে রয়েছে।
 
কুড়িগ্রাম জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও জেলা শহরের মজিদা আদর্শ ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক আতাউর রহমান মিন্টু গত ১৬ মার্চ দুপুরে জেলার রাজারহাট উপজেলার ছিনাই ইউনিয়নের পালপাড়া এলাকায় আগে থেকে ওতপেতে থাকা কয়েকজন দুষ্কৃতকারীর হামলার শিকার হন। হামলাকারীরা কুপিয়ে তার ডান হাতের কব্জি শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে এবং অপর হাত ও দুই পা গুরুতর জখম হয়। বর্তমানে মিন্টু ঢাকার জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে (পঙ্গু হাসপাতাল) চিকিৎসাধীন।
 
এ ঘটনায় সদর উপজেলার কাঁঠালবাড়ী ইউনিয়নের বাসিন্দা মেহেদী হাসান বাঁধনসহ ছয়জন জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠে। পরে বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) মিন্টুর বাবা আলতাফ হোসেন বাদী হয়ে রাজারহাট থানায় বাঁধনসহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।
 
আতাউর রহমান মিন্টু জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাফর আলীর আপন ভাগ্নে। আর বাঁধন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমান উদ্দিন মঞ্জু গ্রুপের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। কাঁঠালবাড়ী এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে তাদের মধ্যে রাজনৈতিক বিরোধও রয়েছে।

মন্তব্য