সারা বাংলা

সকালের সময় 'কোভিড-১৯' আপডেট
# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ 707,362 597,214 10,081
বিশ্ব 139,771,067 118,808,535 3,001,702
Manarat University

সরকারি অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ : ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতাদের প্রতিবাদ

কক্সবাজারের কুতুবদিয়া সরকারি হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে ড্রাইভার হুমায়ুন কবিরের বিরুদ্ধে। দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রতিবাদে গত রবিবার (২ মে) হাসপাতাল ঘেরাও করেন স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতৃবৃন্দ। 
 
জানা গেছে, গত রবিবার সকালে অফিস চলাকালীন এসব অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবাদ জানাতে হাসপাতালে যান নেতারা। কিন্তু যথাসময়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ইউএইচ অ্যান্ড এফপিও) ডা. জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরীকে কার্যালয়ে না পেয়ে দীর্ঘক্ষণ সেখানে অবস্থান করে আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) রেজাউল হাসানের সাথে কথা বলেন তারা। পরে ইউএইচ অ্যান্ড এফপিও কার্যালয়ে এলে নেতৃবৃন্দ তার সাথেও কথা বলেন। ডা. জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী অতিরিক্ত অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া নিয়ে অভিযোগের বিষয়টি তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন বলে নেতৃবৃন্দকে আশ্বস্ত করেন। 
 
জানা গেছে, গত শনিবার রাত ৯টার দিকে বিষপান করা হতদরিদ্র এক রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করান স্থানীয় ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা। কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করেন। তখন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের একজন কর্মচারীর ফোনের মাধ্যমে নেতৃবৃন্দ হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্সটি চাইলে অ্যাম্বুলেন্সে ড্রাইভার হুমাইয়ুন কবির কক্সবাজার যেতে ৫ হাজার টাকা দাবি করেন। পরে নেতৃবৃন্দ মিলে টাকা তুলে হতদরিদ্র ওই রোগীকে সাড়ে ৩ হাজার টাকায় প্রাইভেট অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেন। 
 
উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা তৌহিদুল ইসলাম আরাফাত জানান, হতদরিদ্র রোগী পরিবহনের জন্য সরকারি অ্যাম্বুলেন্স খরচ যদি প্রাইভেট অ্যাম্বুলেন্সের চেয়ে বেশি হয় তাহলে সাধারণ মানুষ যাবে কোথায়? তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে এই অনিয়ম। সরকারি অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে ভাড়া মেরে রোগীদের গলা কাটা হচ্ছে। 
 
উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক সেলিম উদ্দিন লিটন জানান, মাত্র দেড় বছর আগে দ্বীপের অসহায় রোগীদের ভোগান্তির বিষয়টি বিবেচনা করে স্থানীয় সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিকের সহায়তায় নতুন অ্যাম্বুলেন্সটি কুতুবদিয়া হাসপাতালের জন্য সরবরাহ করা হয়। জনগণের অ্যাম্বুলেন্সটি নিয়ে অনিয়মের বিষয়টি জানতে পেরে আমরা উপজেলা যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ঘেরাও করে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরীকে লিখিতভাবে অভিযোগ করেছি। এই কর্মকর্তা কী ব্যবস্থা নেন এখন সেটি দেখার পালা।
 
ইউএইচ অ্যান্ড এফপিও ডা. জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী বলেন, আমার কত কাজ। এক জায়গায় বসে থাকা যায় নাকি? অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া নিয়ে অনিয়মের বিষয়ে তিনি বলেন, সরকারি নিয়মানুযায়ী প্রতি কিলোমিটারে অ্যঅম্বুলেন্স ভাড়া ১০ টাকা। তবে মুমূর্ষু ও ডেলিভারি রোগীদের কোনো ভাড়া দিতে হয় না। অনিয়মের অভিযোগটির বিষয়ে আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে উপযুক্ত জবাব চেয়ে অভিযুক্ত ড্রাইভারকে কারণ দর্শানো নোটিস দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য