ঢাকা শনিবার, ৮ অক্টোবর, ২০২২

বিএনপিতে নতুন আতঙ্ক


নিজস্ব প্রতিবেদক photo নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২২-৯-২০২২ দুপুর ৩:২৭

*  পাড়া-মহল্লায় যাচ্ছে পুলিশ
*  ব্যক্তিগত নানান তথ্য সংগ্রহ
*    একই ব্যক্তির বার বার তথ্য সংগ্রহ 


ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পুলিশ বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের সম্পর্কে নানান ধরনের তথ্য সংগ্রহ করছে। পুলিশ এ তথ্য সংগ্রহ করার কথা স্বীকার করেছে। এতে করে দলটিতে নতুন করে আতঙ্ক সৃষ্টি হচ্ছে বলে বিএনপির শীর্ষ নেতারা অভিযোগ করেছেন। তাদের দাবি, পুলিশ বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহের নামে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। হয়রানি করার উদ্দেশ্যেই পুলিশ এ তথ্য সংগ্রহ করছে। 

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র বলছে, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে এই তালিকা করা হচ্ছে। পুলিশ সূত্র বলছে, সরকারবিরোধী আন্দোলনের নামে কেউ যাতে নাশকতা চালাতে না পারেন, আবার নাশকতার কোনো ঘটনা ঘটলে যাতে সঙ্গে সঙ্গে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া যায়, সে জন্যই এই তালিকা করা হচ্ছে।বুধবার সকালে গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে লক্ষ্য করা যাচ্ছে, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত পুলিশ বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করার নামে হয়রানি করছে এবং দেশে বিরাজমান ভয়ের পরিস্থিতিকে আরও আতঙ্কগ্রস্ত করে তুলছে।

তিনি বলেন, বিভিন্ন এলাকায় পুলিশ রাজনৈতিক কর্মীদের একজনের কাছ থেকে অন্যজনের তথ্য সংগ্রহেও লিপ্ত। বিএনপি এবং এর অঙ্গসংগঠনগুলোর কমিটির তালিকা সংগ্রহ করছে। পুলিশের এ ধরনের কার্যক্রম একদিকে যেমন নাগরিকের গোপনীয়তার অধিকার ক্ষুণ্ন করছে, অন্যদিকে নাগরিকের আইন-অধিকার ভোগ করা এবং তার ব্যক্তিস্বাধীনতার ওপর নগ্ন হস্তক্ষেপ, যা সংবিধানের ৩১, ৩২ ও ৪৩ অনুচ্ছেদের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।ফৌজদারি কার্যবিধির ৪২ ও ৪৪ নম্বর ধারার উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, এসব ধারায় একজন নাগরিকের যুক্তিসংগত কারণে কোনো পুলিশ কর্মকর্তাকে সহযোগিতা করবে বলে বলা হয়েছে। সেই পরিপ্রেক্ষিত ভিন্ন।

কিন্তু ফৌজদারি কার্যবিধির আওতায় যদি কোনো পুলিশ কর্মকর্তা কাউকে গ্রেপ্তার করার এখতিয়ার ধারণ করেন বা আমলযোগ্য অপরাধের সম্পৃক্ততার যুক্তিসংগত কারণ পান এবং সেই ব্যক্তি যদি পালানোর চেষ্টা করেন কিংবা তার শান্তিশৃঙ্খলা ভঙ্গ করার কোনো আশঙ্কা থাকে বা রেলওয়ে, কেনাল, টেলিগ্রাফ অথবা সরকারি সম্পত্তির ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে বা ৪৪ ধারায় উল্লিখিত দণ্ডবিধির কোনো অপরাধ সংঘটনের তথ্য থাকে, তবেই কেবল ওই পুলিশ কর্মকর্তা একজন নাগরিকের সহযোগিতা চাইতে পারেন, অন্য কোনো কারণে নয়।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, পুলিশ বিএনপিসহ ভিন্নমতাবলম্বীদের গণহারে শুধু নাম-ঠিকানাই নয়, তাদের পেশা, সন্তান-সম্পত্তির বিবরণসহ চৌদ্দগোষ্ঠীর যাবতীয় বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করছে, যা দেশে বিরাজমান আতঙ্কের পরিস্থিতিকে ভয়াবহ করে তুলছে। এভাবে সাধারণ নাগরিক ও রাজনৈতিক কর্মীদের হয়রানি বন্ধ করে দেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশ সৃষ্টির জন্য সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করতে পুলিশ কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, তার বাসাতেও পুলিশ এসেছিল তথ্য সংগ্রহে। কিন্তু তারা এ সংক্রান্ত কোনো চিঠি দেখাতে পারেনি। তিনি আরও বলেন, ‘আমরা লক্ষ্য করছি, যখন আমরা কর্মসূচি শুরু করেছি, সমাবেশ বেশি হচ্ছে, তখন থেকে তারা এক কাজগুলো শুরু করেছে। বিশেষ করে উপজেলা পর্যায়ে যখন জনসম্পৃক্ততা বাড়ছে, তখন সেখানে কর্মীদের ভয়ভীতি দেখানোর উদ্দেশ্য, মানুষকে হয়রানি করার জন্য, আন্দোলনকে দমন করার জন্য এটাকে কৌশল হিসেবে ব্যবহার করছে তারা।’
সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান জানান, তার কাছেও পরিবার-সন্তান ও তার ব্যক্তিগত তথ্য চেয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তিনি বলেন, ‘আগে কেন্দ্রীয় বা জেলা পর্যায়ের নেতাদের ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে খোঁজখবর নেওয়া হতো। এখন আন্দোলন যত বিস্তৃত হচ্ছে, একেবারে ঢাকায় ওয়ার্ড পর্যায়ের লোকজন, উপজেলা পর্যায়ের লোকজনের ব্যাপারেও তথ্য নেওয়া হচ্ছে। মুশকিল হয়েছে কি, একবার নিলে তো হতো; এটা যে ভয় দেখানোর উদ্দেশ্যে, সেটা বোঝা যায় এভাবে, বারবার, একবার একজন নেয়, তারপর আরেকবার আরেকজন নেয়।’

চট্টগ্রামেও বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের পদধারী নেতাদের তালিকা করছে পুলিশ। চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের ১৬ থানায় এই তালিকা করা হচ্ছে বলে একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন। তালিকায় বিএনপি নেতাদের নাম-ঠিকানার পাশাপাশি জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বরও সংগ্রহ করা হচ্ছে।বিএনপির নেতাদের অভিযোগ, ভুয়া মামলায় আসামি করা ও হয়রানির জন্যই এই তালিকা করা হচ্ছে। জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে পুলিশ এটা করছে। নেতারা জানান, তারা হামলা-মামলা নিয়ে ভীত নন। এভাবে তাদের দমানো যাবে না।

চট্টগ্রাম নগর পুলিশের এক সূত্র জানিয়েছে, গত ১৭ জুলাই পুলিশ সদরদপ্তর থেকে চট্টগ্রামে পদধারী বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের পদধারী নেতাদের তালিকা করতে চিঠি পাঠানো হয়। পুলিশের বিশেষ শাখা থেকে নগরীর ১৬ থানায় ২১ জুলাই চিঠির দিয়ে ২ দিনের মধ্যেই তথ্য সরবরাহ করতে বলা হয়।চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, ‘বিভিন্ন থানাধীন এলাকায় বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনগুলোর ইতোমধ্যে ঘোষিত কমিটির পদধারী নেতাদের সম্পর্কে তথ্যগুলো ছক অনুযায়ী হার্ডকপি বাহক মারফত এবং সফট কপি ই-মেইলে পাঠানোর জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।’

বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা থাকলে এর তথ্য এবং পরবর্তীতে কোনো কমিটি গঠিত হলে সেই তথ্যও ছক অনুযায়ী পাঠানোর জন্য বলা হয়েছে। তবে নগর পুলিশের কর্মকর্তাদের দাবি, এমন কোনো তালিকা করা হচ্ছে না।এ বিষয়ে সিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) এ এস এম মাহাতাব উদ্দিন বলেন, ‘আপনাকে যিনি এই ধরনের তথ্য দিয়েছেন এই বিষয়ে তাকেই জিজ্ঞাসা করুন।’ তিনি এই বিষয়ে আর কথা বলতে রাজি হননি। তালিকার বিষয়ে সিএমপির বিশেষ শাখার (এসবি) উপ-পুলিশ কমিশনার মঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, ‘এই বিষয়ে আমার কাছে তথ্য নেই। আমরা বিএনপি নেতাদের কোনো তালিকা করছি না, এটি ভুল।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নগর পুলিশের এক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বলেন, ‘বিএনপি নেতাকর্মীদের তালিকা নতুন কিছু নয়। এবার কমিটির বিস্তারিত তথ্য এবং এনআইডি নম্বর যুক্ত হয়েছে।’নগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘আমরা তালিকা নিয়ে ভীত নই। তালিকা করে মামলা দিয়ে হয়রানি করে আমাদের নেতাকর্মীদের দমানো যাবে না। পুলিশ এখন সরকারের ঢাল হিসেবে কাজ করছে। আমাদের কর্মীদের মনোবল দেখে তারা ভীত।’‘গণতন্ত্রের জন্য আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব। যেসব উৎসুক পুলিশ কর্মকর্তা আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেবে এবং হয়রানি করবে তাদের বিরুদ্ধে আমরাও মামলা করব। এবার আমরা ছেড়ে কথা বলব না,’ যোগ করেন তিনি।বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগের সমন্বয়ক মাহবুবুর রহমান শামীম বলেন, ‘এ ধরনের তালিকা পুলিশ আগেও করেছিল। তালিকা ধরে আমাদের নেতাদের মামলায় ফাঁসিয়ে গ্রেপ্তার করে আন্দোলন দমানো যাবে না। আমরা রাজপথ ছাড়ব না।’দলীয় নেতারা বলছেন, নগর বিএনপির রাজনীতি গত কয়েক মাসের কর্মসূচিতে আবারও চাঙ্গা হয়েছে। দলীয় কার্যালয় নসিমন ভবন সরগরম হয়ে উঠেছে। কমিটি গঠন নিয়ে এবং নানা দাবি ও ইস্যুতে নেতাদের সরব উপস্থিতি কর্মীদেরকে নতুন করে সংগঠিত করেছে। জামিনে বের হয়ে অনেক নেতা আবার রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছেন।

বিএনপির নেতাদের তথ্য অনুসারে, নাশকতার অভিযোগে ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে ২০১৮ থেকে ২০২২ সালে পর্যন্ত নগরীর বিভিন্ন থানায় কয়েক হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ২ শতাধিক মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ১৪০টি মামলা হয়েছে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বরের মধ্যে।

এমএসএম / এমএসএম